Bangla ArticlesDigital Marketing TipsE-Commerce Tips & tricksEarning Tips & TricksFacebook Tips & Tricks

ফেসবুক এডস দেওয়ার সময় কিছু বিষয় কখনোই করা উচিৎ নয়

 Facebook Marketing Tips 02

ফেসবুক এডস দেওয়ার সময় কিছু বিষয় কখনোই করা উচিৎ নয়। আমরা জেনে না জেনে ভুল করে বসি। অনেকেই সেম ভুল বারবার করি, ফলে এডস একাউন্ট বন্ধ হয় এমনকি পেজও আনপাবলিশ হয়ে যায়। গত কিছু দিন আগে আমি E-Cab গ্রূপেই পোষ্ট করেছিলাম – ফেসবুক এডস রিচ ঠিক মত আসছে না বা রিচ হলেও ভালো রেসপন্স পাচ্ছেন না। এই বিষয়ে লিখেছিলাম বিস্তারিত , যারা পড়েন নাই পড়ে নিন – ( Facebook Marketing Tips 01 ) ফেসবুকে রিচ পাচ্ছেন না / রিচ আসছে কিন্তু অর্ডার পাচ্ছেন না?

আমি বলেছিলাম আপনাদের আমার লেখাটি ভালো লাগলে আমি নতুন একটি টপিক্সে লিখবো – ফেসবুক এডস এ কি করা উচিত নয় বা কি হ্যাকস গুলো করবেন। তার ধারাবাহিকতায় আজকের পোষ্ট- কি কি বিষয় গুলো কখনোই করবেন না ফেসবুক এডস দেওয়ার সময়। অনেক গুলো বিষয় আছে কিন্তু আমি সহজ ভাবে অল্প কিছু পয়েন্ট তুলে ধরেছি। এডস দেওয়ার আগে এই বিষয় গুলো মাথায় রেখে এডস রানিং করবেন। বিঃদ্রঃ আমি কোন এক্সপার্ট না, গ্রূপে অনেক সিনিয়র ভাই আছেন সবাইকে শ্রদ্ধা রেখেই পোষ্ট করা। আর আমি নিজেও এই গ্রূপ থেকে অনেক কিছু শিখেছি।

1.  Content Copy Paste:

অনেকেই নিজে নিজে এডস রান করেন , কিন্তু অন্যের ছবি , লেখা কপি করে এডস রান করেন। হয়তো ফেসবুক আপনাকে কপিরাইট পলিসিতে ধরছে না। কিন্তু ফেসবুক কে কখনো এতো বোকা ভেবে বসেন না। শুধু মনে রাখবেন ফেসবুক আপনার সব খবর রাখে। “ফেসবুক আপনি ব্যবহার করেন না , ফেসবুক আপনাকে ব্যবহার করে।” অনেকের দ্বিমত হবে এই কথায়। কিন্তু কারো সাথে আমি তর্কে যেতে চাই না। মনে রাখবেন ফেসবুক কিন্তু একটি কোম্পানি, এবং তার বিজনেস অংশ আপনি।

সুতরাং কপি করা ছবি বা টেক্সট দিয়ে বুস্ট করা থেকে বিরত থাকুন। এটা কখনোই আপনার পেজের জন্য ভালো কিছু আনবে না।

2.  20% Ad Text Rules :

অনেকেই এড এর ছবিতে টেক্সট লিখেন। কিন্তু কেউ প্রপার রুলস ফলো করেন না। সর্বোচ্চ 20% টেক্সট ব্যবহার করা যায় এর বেশি নয়। অনেকেই ভাবে বেশি টেক্সট লিখলে কাষ্টমার বেশি ভালো বুঝবে , কিন্তু ব্যাপারটা মোটেও ঠিক নয়। আপনি যত কম টেক্সট এড করবেন তত ভালো রিচ পাবেন। যত বেশি টেক্সট দিবেন তত রিচ ফেসবুক কমিয়ে দিবে। আপনার ছবিতে কত পার্সেন্ট বা ছবি এডস রান করবে কিনা সেটা ফেসবুক থেকে Facebook text overlay tools থেকে চেক করে নিতে পারবেন। গুগলে সার্চ করলেই পেয়ে যাবেন।

আরেকটি ব্যাপারে বলি – অনেকে পেজ লাইক বাটন বুস্ট করেন পেজের লাইক বাড়ানোর জন্য। সেখানে ছবির ক্যাপশন অনেকেই বেশি টেক্সট দেন। কিন্তু এটা ভুল , আপনার রিচ কমে যাবে। ৯০ লেটার এর বেশি টেক্সট কখনোই দেওয়া যাবে না। সেভাবে ভেবে ৯০ লেটারের ভিতর ক্যাপশন লিখুন।

3.  The Wrong Objective :

আপনি যদি না জানেন ফেসবুক এডস অবজেক্টিভ কি, তাহলে দয়া করে লিংক থেকে পড়ে নিন। https://bit.ly/2IQM1cT
ঠিক মত বা সঠিক অবজেক্টিভ সিলেক্ট না করতে পারলে কখনোই সাকসেসফুল ক্যাম্পেইন করতে পারবেন না। ভুল অবজেক্টিভ শুধু মাত্র টাকা পানিতে ফেলা ছাড়া কিছু নয়।

4. The Wrong Ad Delivery Optimization and Bidding Strategy

আপনার মার্কেটিং বা এডস বাজেটের বেশি কখনোই টাকা খরচ করা উচিত নয়। আর সেটার জন্য ad delivery optimization and bidding strategy সঠিক ভাবে করা উচিৎ আপনার বিজনেস গোল সাকসেস করার জন্য।

5.  Reckless Spending :

এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট আমি মনে করি। আপনার বাজেট যাইহোক আপনি পুরো টাকা উসুল করে নিন। আপনার সব এডস এ সেম রেসপন্স পাবেন না কখনোই। কোন এডস এ ১০০০ রেসপন্স পাবেন আবার কোনটি তে ৩০০ রেসপন্স। এখন মূল কথায় আসি, আপনি এডস সব সময় মনিটরিং করেন। দরকার হলে সাথে ক্যালকুলেটর রাখেন।

মনে করুন একটি এডস রানিং করেছেন, এখন আপনার A এডস এ রিচ 1$ = 700 জন রিচ হয়েছে এবং খরচ হয়েছে – 0.10 $। B এডস এ রিচ 1$= 500 জন এবং খরচ – 0.60 $ । A এর তুলনায় B এর খরচ বেশি তুলনামূলক ভাবেই। অনেকেই এডস রান করেছেন সেটা সম্পূর্ণ করে ফেলেন মনিটরিং না করেই। ফলে কিছু এডস এ আপনার এমনিতেই অতিরিক্ত খরচ হয়। আপনি একটু হিসাব নিকাশ করুন, দেখুন তুলনামূলক খরচ বেশি হলে সেই এডস বন্ধ করে দিন। শুরুতেই খরচ বেশি মানে এমনিতেই আপনার খরচ বেশি হবে, অনেক ভাবেন শেষ হলেই সব মেকআপ করে দিবে, কিন্তু না। এডস দরকার হলে ডিলেট করে নতুন করে আবার দিন অডিয়েন্স টার্গেট সেট করে। হয়তো মনে হবে কিছু ডলার এভাবে নষ্ট হচ্ছে, কিন্তু আপনার এড কস্ট অনেক কমে যাবে।

আমাদের লক্ষ্য থাকবে, কম খরচে কিভাবে বেশি রিচ পাওয়া যায়। ফেসবুক সব এড এ সমান রিচ দেয় না, তাই আমাদের মনিটরিং করে দেখা উচিত। যেই এডস এ ভালো রেসপন্স পাবো না সেটা রানিং না রাখাই ভালো। কয়েকটি এডস কম্পেয়ার করলেই বুঝবেন কোন ক্যাম্পেইন টি ভালো রেসপন্স আসছে। যারা নিজেই নিজের এডস রান করেন তাদের জন্য খুবই হেল্পফুল।

বাজেট যাই হোক না কেনো সেটা সম্পূর্ণ কাজে লাগান।

6.  Poor Targeting:

ডিটেইল মার্কেটিং করতে চাইলে সব সময় মনে রাখবেন , আপনি কি সেল করবেন আর কি টার্গেট করবেন সেটা ভালো ভাবে লিঙ্কআপ করা। লোকেশন , ইন্টারেস্ট বা এক্টিভিটি যদি সুনির্দিষ্ট না হয় তাহলে সেই এডস এ আপনি ভালো রেজাল্ট পাবেন না। ধরুন আপনি লাল আটা বিক্রি করবেন, তাহলে আপনি ডায়বেটিস রোগীকে টার্গেট করুন। ( উদাহরণ, সিরিয়াস নিবেন না। )

7.  Facebook Policy-Related Ad Mistakes :

অনেকেই ভালো করে ফেসবুক এডস পলিসি ঠিক মত পড়েন না বা কখনোই পড়েন নি। তাই বলবো, নিজে এডস রান করছেন খুবই ভালো কথা কিন্তু অবশ্যই আগে এডস পলিসি ভালো করে পড়ে নিন। না পড়ে যদি কোন এডস এ পলিসি ব্রেক করেন আপনার পেজ ও এডস একাউন্ট ডিজেবল করে দিতে পারে। একই ভুল বার বার করলে পেজ আনপাবলিশ হয়ে যাবে অটোমেটিক ভাবেই, তখন কোন ভাই ব্রাদার কোন হেল্প করতে পারবে না।

8.  Inappropriate or Offensive Content :

টপিক্স টা হয়তো বুজেই গেছেন অনেকেই। সুতরাং এমন কিছু কন্টেন্ট বুস্ট করবেন না যেটা পলিসি ব্রেক হয়। পলিসি গুলো বুঝলে এটাও বুঝে যাবেন। উদাহরণ – কোন সেক্সচুয়াল কন্টেন্ট প্রমোট করা।

9.  Low-Quality or Disruptive Content :

ফেসবুক চায় তার ইউজারদের সব সময় ভালো এক্সপেরিয়েন্স দিতে। কোন কন্টেন্ট যদি তার ইউজার কে নেগেটিভিটি এক্সপেরিয়েন্স দেয় তাহলে ফেসবুক সাথে সাথেই সেটা রিমুভ করে দিবে। আপনার এডস যদি স্লো লিডিং হয় বা কোন লিংক দিয়েছেন সেটা ব্রেক করে অথবা মিসলিডিং ইনফরমেশন হলে ফেসবুক এডস এপ্রুভ করবে না।

10. Wrong ads Review/ appeal : অনেক সময় আমাদের এডস ফেসবুক এপ্রুভ করে না পলিসি গত বা কোন ভুলের কারণে। কিন্তু আমরা ঠিক মত কেস টি পড়ে দেখি না, আর না দেখেই নিজের কনফিডেন্স এ আপিল করে বসি। আপিল ও রিজেক্টে করে দেয়। বারবার এমন কাজ থেকে বিরত থাকুন। আগে ভালো মত বুঝুন সমস্যা কোথায়।

মোটামুটি এই ১০ টি পয়েন্ট আজ জেনে রাখুন,আপনাদের ভালো লাগলে আরো কিছু নিয়ে পোষ্ট করবো কিছুদিন পর। আর পরের বার আপনাদের জন্য কি লিখবো – কি কি হ্যাকস ব্যবহার করবেন ফেসবুক এডস রানিং করতে ? কমেন্টে জানিয়ে দিবেন। 😉
গতবারের পোষ্ট অনেক ভাইয়ার ভালো লাগেনি, তাই দু একজন একটু ইনবক্সে এট্যাক করে বেসেছিলেন, তাই দোয়া করে ভালো না লাগলে স্কিপ ইট। ভুল করলে ক্ষমা করবেন। 🤗

গতবারের পোষ্টে অনেকেই আমাকে ইনবক্স করছেন, কিন্তু একটা ব্যাপারে বলি – ভাইয়া আপনি এডস এর বেসিক জানেন টুকটাক কোন সমস্যা হলে আমি যদি পারি আপনাকে সাজেশন করতে পারি। কিন্তু আপনি কোন কিছুই জানেন না , আমাকে বলছেন আপনকে শিখিয়ে দিতে। আসলেই কি সম্ভব এটা ভাইয়া?

অবশ্যই আপনার টুকটাক সমস্যা হলে আমাকে নক করতে পারেন। ভাই ব্রাদার মানুষ তাই যতটুকু সম্ভব হেল্প করার ট্রাই করবো। ধন্যবাদ 🤗

Writer – Shorif Islam

Related Articles

Leave a Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!