img
১০ টিপস ওয়েবসাইট ডিজাইন এর জন্য যা বিক্রয় বাড়িয়ে দিবে

১০ টিপস ওয়েবসাইট ডিজাইন এর জন্য যা বিক্রয় বাড়িয়ে দিবে

October 18, 2018

১০ টিপস ওয়েবসাইট ডিজাইন এর জন্য যা বিক্রয় বাড়িয়ে দিবে

 

প্রত্যেক বিজনেস মালিক এমন একটি ওয়েবসাইট চাই যা ভিজিটর কে পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে উৎসাহিত করে : বিক্রয় বা যোগাযোগ । এই পদক্ষেপ কে কথোপকথন বলা হয় , এই টা সেই মুহূর্ত যা সম্ভাব্য কাউকে গ্রাহক বানাবে । যদি আপনার ওয়েবসাইট অনেকে ভিজিট করে কিন্তু সে তুলনাই কথোপকথন কম তাহলে আপনাকে খুঁজে বের করতে হবে , কেন ?

এই টা সত্য যে অনেক কারনে তা হয়ে থাকে । বিশ্বাস করুণ আর নাই করুণ এই টা সত্য যে ওয়েবসাইট ডিজাইন অনেক প্রভাব বিস্তার করে থাকে গ্রাহক এবং তার চয়েস উপর । স্টাডি বলে প্রোডাক্ট বা সার্ভিস মূল্যায়ন করতে ৯০ সেকেন্ড সময় নেয় । ভিজিটর সেই সময় এর কিছু অংশ ওয়েবসাইট কে দিয়ে থাকে , ৮ সেকেন্ড এর ও কম । সেই প্রথম ইমপ্রেশন ৯৪ পারসেনট ডিজাইন সম্পর্কিত । আরও কিছু , ৭৫ % ভিজিটর কোম্পানির বিশ্বাসযোগ্যতা বিচার করে আপনার ওয়েবসাইট এর ডিজাইন এর উপর ।
বেশিরভাগ সময় প্রথম বার আপনার ওয়েবসাইট এর ভিজিটর ক্রয় এর জন্য রেডি থাকে না । তারা অপশন গুলি অনুসন্ধান করে থাকে আর অন্যদের সাথে তুলনা করে থাকে । আপনি কি জানেন কিভাবে প্রতিযোগিতায় জিতবেন ? আপনার মার্কেটে যারা নেতৃত্ব দিচ্ছে তাদের ওয়েবসাইট দেখুন ।
তারপর সমালোচনামূলক দৃষ্টি নিজের দিকে তাক করুণ ।

এই খানে ১০ টি দিক উল্লেখ করা হল যখন আপনার ওয়েবসাইট এর ডিজাইন নিয়ে বিবেচনা করবেন
এবং সিদ্ধান্ত নিবেন কোনটি সব থেকে বড় দিক যা আপনার বিক্রয় বাড়াতে বেশ ভুমিকা রাখবে ।

১- রঙ ।

Performable তাদের call-to-action বাটন ( ম্যাসেজ দিন ,কল করুণ , আরও বেশী জানতে ক্লিক করুণ ) সবুজ থেকে লাল রঙ করায় ২১ % কথোপকথন বেড়ে যায় । Ript Apparel তাদের বাটনের
কালার সবুজ থেকে হলুদ কালার করায় ৬.৩ % কথোপকথন বেড়ে যায় । এটা জেনে রাখা ভাল যে সবুজ এবং লাল রঙ যারা কালার ব্লাইনড তাদের অধিকাংশের প্রবলেম হয় ।
এই ছাড়া আপনার গ্রাহকের কথা মাথায় রেখে কাজ করতে পারেন । আপনি যদি টার্গেট করেন মহিলাদের তাহলে নীল , পার্পল , সবুজ এর উপর ফোকাস করুণ । পরুষ এর উপর ফোকাস করলে নীল , সবুজ , কাল বেছে নিতে পারেন । সব থেকে কম কার্যকারী রঙ ব্রাউন , অরেঞ্জ ।

২- ভিডিও ।

প্রোডাক্ট বা সার্ভিস সম্পর্কিত ভিডিও কথোপকথন বা বিক্রয় বাড়িয়ে দেয় । পরিমাণ কম বা বেশী হতে
পারে তবে কিছু কোম্পানির রিপোর্ট বলে ১৪৪% পর্যন্ত বিক্রয় বেড়ে যায় । বিজনেস টু বিজনেস বা সার্ভিস বেইজ কোম্পানি ভিডিও এর মাদ্ধমে তাদের স্টোরি বা অন্যদের থেকে আলাদা করে এমন কথা শেয়ার করতে পারে ।

৩- সহজ করা ।

সব থেকে বেশী দরকারি তথ্য রাখুন “above the fold.” । ভিজিটর কে বাধ্য করবেন না তারা যা চাই তা পেতে স্ক্রল বা খুঁজতে । খুব সিম্পল ন্যাভিগেশন তৈরি করুণ যাতে ভিজিটর খুব সহজেই খুঁজে পাই
যা হোমপেজে নাই ।

৪- আপনার ভিন্নতা ক্লিয়ার করুণ ।

আপনার ভিন্নতা কি ? যদি না জানেন তাহলে এই টা আপনার প্রথম সমস্যা । আপনার দ্বিতীয় সমস্যা
? হয়তো আপনার ভিন্নতা স্পষ্টভাবে প্রতীয়মান না আপনার ওয়েবসাইট ভিজিটর এর কাছে । এই টা অবশ্যই ভিজিটর এর সামনে নিয়ে আস্তে হবে কেন আপনার কোম্পানি কে সিলেক্ট করা উচিৎ ।

৫- বিশ্বস্ততার প্রতীক ।

কোন সংস্থা বা অথরিটির সার্টিফিকেট বিশ্বস্ততার প্রতীক । আপনার হয়তো সিকুরিটি সিল বা আপনার
ইনদাস্ত্রিজ এর প্রতীক থাকতে পারে যা আপনি শেয়ার করতে পারেন । কোন গ্রাহক এর ইন্টার্ভিউ একই প্রতীক হিসাবে কাজ করতে পারে আপনি যদি তা ভাল ভাবে উপস্থাপন করতে পারেন ।
মোট কথা আপনার উদ্দেশ্য হবে এই টা নিশ্চিত করা যে আপনার সম্ভাব্য গ্রাহক যাতে ফিল করে আপনি মানসম্পন্ন প্রোডাক্ট বা সার্ভিস দিতে সক্ষম ।

৬- ফ্রি অফার ।

আপনার যদি কোন ফ্রি আইটেম থাকে তবে ” ফ্রি ” শব্দ টি উচ্চ এবং ক্লিয়ার হতে হবে । কি কারন হতে পারে যে কিছু মানুষ আপনার কোম্পানি থেকে ক্রয় করছে না ? আপনার ওয়েবসাইট এর উচিৎ
হবে কিভাবে আপনি আপনার গ্রাহক এর প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন এবং তাদের সমস্যা
চিহ্নিত করে তা সমাধান করে থাকেন ।

৭ – শর্ট ফর্ম ।

সম্ভাব্য গ্রাহক আপনার ফ্রি কিছু পেতে তার অনেক তথ্য যেমন জন্ম দিবস , বিবাহ বার্ষিকী , নাম ,
ঠিকানা দিতে প্রস্তুত নাও থাকতে পারে । তাই সংক্ষেপে নাম , নাম্বার , ইমেইল নিন শুধুমাত্র ফ্রি এর
বিনিময়ে । আপনি যদি এখনও captcha টেস্ট দিয়ে রাখেন তাহলে আপনার ডাকে সাড়া দান কারীর
সংখ্যা কমাচ্ছেন ।

৮ – ভারচুয়াল চ্যাট ।

আগের চাইতে এখন অনেকে ওয়েবসাইট ভিজিট করে কল দেয়া বা অপশন খোঁজা থেকে অনলাইনে
চ্যাট করতে ভালবাসে । যদি তারা না ও চাই তারপরে দেখে যে চ্যাট করার অপশন আছে তাহলে বিশ্বাসযোগ্যতা বাড়ে ।

৯- হেডলাইন ।

আপনার বড় , হেডলাইন অবশ্যই যেন সম্ভাব্য গ্রাহক যে উদ্বেগ প্রকাশ করে তা যেন চিহ্নিত করে ।
তারা কি টাই মিং নিয়ে চিন্তিত ? নাকি প্রক্রিয়া ? নাকি ফলাফল নিয়ে ? যাইহোক না কেন তার সমাধান দিন বড় বড় অক্ষরে ।

১০ – সাদা স্পেস ।

একটি এলোমেলো ওয়েবপেজ কুৎসিত দেখায় এবং আবদ্ধ আবদ্ধ ফিল দেয়্ । অনেক বেশী উপাদান
ভিজিটর কে কনফিউজড করে দেয় ফলে তা ছেড়ে ছুড়ে পালায় ।
Bonus: A/B Testing

যখন কিছু ওয়েব ডিজাইন প্রমাণিত , তারপরেও প্রত্যেক বিজনেস এবং প্রত্যেক ইন্দাস্ত্রিজ আলাদা আলাদা হতে পারে । সেই বিজনেস উত্তরোত্তর বৃদ্ধি হতে থাকবে যে মাঝে মাঝেই ছোট ছোট চেঞ্জ
করে পরীক্ষা চালাতে থাকবে ।( Call-To-Action এর বাটন গুলির রঙ চেঞ্জ করলে কি ঘটে )
যখন মাঝে মাঝেই উঠা নামা দেখবেন তখন এই ছোট ছোট চেঞ্জ এর ফলে ছোট ছোট বৃদ্ধি ঘটবে
ফলাফল আপনার ওয়েবসাইট শক্তিশালী থেকে আরও শক্তিশালী হতে থাকবে ।

তবে মনে রাখতে হবে পরীক্ষা নিরীক্ষা চালানোর সময় শুধুমাত্র একটি চেঞ্জ করে পরীক্ষা করতে
হবে । পরীক্ষা চালাতে পারেন বাটন এর কালার , টেক্সট , এলিমেনট , স্থান চেঞ্জ এর মাধ্যমে ।
তারপর কয়েক সপ্তাহ অপেক্ষা করে ওয়েবসাইট এর ভিজিটর দেখে কোন চেঞ্জ তা পার্মানেন্ট করবেন
বা কোনটা আগের টাই রাখবেন সে সিদ্ধান্ত নিবেন ।

http://MakkiHosting.Com

My name is MD Omar Makki, I’m working as Web Developer/Designer, SEO (Search Engine Optimization), SMM (Social Media Marketing), SMO (Social Media Optimization), Hosting Provider, SMA (Social Management Account), Business Adviser, E-Commerce Business Developer from last 6 years.

Leave a Reply

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *